ফিলিস্তিনের পূর্ণ স্বাধীনতার জন্যে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবেঃ মহাসচিব

গাজায় ইসরাইলী গণহত্যার প্রতিবাদে ঢাকায় খেলাফত মজলিসের বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা, ২৯ আগস্ট: খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের বলেছেন, গাজায় কুক্ষাত সন্ত্রাসী ইসরাইল আক্রমন চালিয়ে প্রায় আড়াই হাজার ফিলিস্তিনী নাগরিককে, মুসলমানকে হত্যা করেছে। দুর্ভাগ্যবশত আরবলীগ, আবরবিশ্ব এর বিরুদ্ধে সোচ্চার...

ঢাকাস্থ ফিলিস্তিনী দূতাবাসে খেলাফত মজলিস নেতৃবৃন্দ

ঢাকা, ২৬ আগস্ট: গাজায় ইহুদীবাদী ইসলাইলের অব্যাহত গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞের প্রতিবাদে ও মজলুম ফিলিস্তিনী ও গাজাবাসীর প্রতি সমবেদনা ও সংহতি প্রকাশের জন্যে খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদেরের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল ঢাকাস্থ ফিলিস্তিনী দূতাবাসে গিয়ে ফিলিস্তিনী রাষ্ট্রদূত শাহের মোহাম্মদ এর...

খেলাফত মজলিসের মজলিসে কেন্দ্রীয় শূরার ষান্মাসিক অধিবেশন অনুষ্ঠিত

ঢাকা, ২২ আগস্টঃ খেলাফত মজলিসের আমীর মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক বলেছেন, রাজনৈতিক দমন নিপিড়নের সাথে সরকার এখন সংবাদ মাধ্যম ও সাংবাদিকদের উপর আক্রমন শুরু করেছে। ইনকিলাবের বার্তা সম্পদক রবিউল ইসলাম রবেকে অফিস থেকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে, আমারদেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে বছরের পর...

সরকার সাংবাদিকদের উপর নির্যাতন চালাচ্ছেঃ আমীরে মজলিস

ঢাকা, ২১ আগস্টঃ খেলাফত মজলিসের আমীর মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক বলেছেন, সংবাদ মাধ্যমের কন্ঠরোধ করার জন্যে সরকার সাংবাদিকদেও উপর জেল, জুলুম, নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। ইনকিলাবের বার্তা সম্পদককে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে, আমারদেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে বছরের পর বছর কারারুদ্ধ করে রাখা...

ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে সরকারের ’সম্প্রচার নীতিমালা’- আমীরে মজলিস

ঢাকা, ১২ আগস্ট: খেলাফত মজলিসের আমীর মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক বলেছেন, মিডিয়ার কন্ঠরোধ করে জনবিচ্ছিন্ন সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্যে ’সম্প্রচার নীতিমালা’ প্রনয়ণ করেছে। হত্যা, জেল, জুলুম, নির্যাতনের মাধ্যমে জনগণকে জিম্মি করেও সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকার ব্যাপারে সন্দিহান। সরকার স্বাধীন গণমাধ্যমকে ভয়...

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম


মানুষ আল্লাহর খলিফা ও বান্দা । খেলাফত ও উবুদিয়্যাতের দায়িত্ব যথাযথভাবে আঞ্জাম দেয়ার উপরই মানুষের দুনিয়ার সামগ্রিক কল্যাণ এবং আখেরাতের মুক্তি ও শান্তি নির্ভরশীল।

ইসলাম মানুষের জন্য মনোনীত দ্বীন ও সর্বোত্তম জীবন ব্যবস্থা। ইবলিসী চক্রান্তে সৃষ্ট শোষণ-নির্যাতন, নৈরাজ্য, অনৈক্য-বিভেদ, অন্যায়-অবিচার-অনাচার, যুদ্ধ-সংঘাতে পরিপূর্ণ বিপর্যস্ত পৃথিবীর হতাশাগ্রস্ত মানুষের একমাত্র মুক্তির পথ ইসলাম। সমাজের সর্বস্তরে ইসলামের পূর্ণ প্রতিষ্ঠাই শান্তি ও অগ্রগতি, সুবিচার ও সাম্যের নিশ্চয়তা দিতে পারে।

বর্তমানে উলামা মাশায়েখ ও দ্বীনদার শ্রেণীর মাধ্যমে ইসলামের বিভিন্ন পরিমন্ডলে ইসলামের বাস্তবরূপ তথা খেলাফত ব্যবস্থা কায়েম নেই দীর্ঘদিন ধরে। অথচ মানবতার বিশেষভাবে মুসলিম বিশ্বের মুক্তি, সমৃদ্ধি, সম্মান ও দায়িত্ব গোটা মুসলিম জাতির, বিশেষভাবে উলামা-মাশায়েখ, দ্বীনদার বুদ্ধিজীবী ও রাজনীতিকদের।

বাংলাদেশের ক্ষেত্রে এ সত্য সমভাবে প্রযোজ্য। এখানকার সামাজিক বৈষম্য, অর্থনৈতিক শোষণ, রাজনৈতিক নিপীড়ন, হানাহানি, সাংস্কৃতিক নৈরাজ্য ও দেউলিয়াপনা এবং বৈদেশিক আধিপত্যের অবসানে গোটা সমাজ ব্যবস্থাকে ইসলামের আলোকে পুনর্গঠিত করতে হবে। দেশের পনের কোটি মানুষের কল্যাণ ও সমৃদ্ধির জন্য ইসলামী আদর্শের ভিত্তিতে সমাজের বিপ্লবাত্মক পরিবর্তন তথা একটি ইসলামী বিপ্লব প্রয়োজন। প্রয়োন খেলাফত ব্যবস্থাকে এখানে পুনরুজ্জীবিত করে দেশকে সত্যিকার অর্থে একটি সার্বজনীন কল্যাণ রাষ্ট্রে পরিণত করা। এ শুধু পার্থিব প্রয়োজনেই নয় বরং আখেরাতের মুক্তির জন্যো অপরিহার্য।

বাংলার জমীনে আল্লাহ্র খেলাফত প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে এ দেশের ইসলামী আন্দোলনের ক্ষেত্রে এক নবতর সমন্বয়ধর্মী ও গণভিত্তিক ঐতিহ্য-চেতনা সমৃদ্ধ আপোষহীন নির্ভেজাল ইসলামী আন্দোলন গড়ে তোলার প্রয়োজনে ১৯৮৯ সালের ৮ই ডিসেম্বর খেলাফত মজলিস আত্মপ্রকাশ করেছে।